আজ বুধবার ১২ই মে, ২০২১ ইং রাত ২:৪৫

add

শিরোনাম

হাম-রুবেলা টিকা নেওয়ার ১০-১৫ মিনিটেই শিশুর মৃত্যু, অভিযোগ পরিবারের
ক্ষমতার চেয়ার আর কারাগার পাশাপাশি থাকে: প্রধানমন্ত্রী
পুলিশে মাদকসেবীর কোনো স্থান নেই : রাজশাহীতে আইজিপি
ঘন কুয়াশা আর হিম বাতাসে বিপর্যস্ত জনজীবন
যুক্তরাজ্যের সঙ্গে ৪০টির বেশি দেশের যোগাযোগ বন্ধ
একদিন যুদ্ধবিমান বানাবে বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী
সোনারগাঁয়ে নুনেরটেকে বিদ্যুতের জলকানি

পৃথিবী থেকে ফুরিয়ে যাচ্ছে যে ৬টি জিনিস!

আলোকিত সোনারগাঁও ডেস্ক : পাখির অনেক প্রজাতি হারিয়ে গেছে, দেশীয় মাছ হারিয়ে যাবার পথে, পানির স্তরও কমে যাচ্ছে- এগুলো হয়তো অনেকেই শুনেছেন। কিন্তু পৃথিবীর আরও অনেক সম্পদ দ্রুত ফুরিয়ে যাচ্ছে অথবা ঠিকমতো ব্যবহার না হওয়ায় বিলুপ্ত হতে বসেছে। যা আমাদের প্রাত্যহিক জীবনকে নানাভাবে প্রভাবিত করে। এবার সে রকম ৬টি বিষয় তুলে ধরা হলো-

 

১. কক্ষপথে জায়গা কমে যাচ্ছে
২০১৯ সাল পর্যন্ত কক্ষপথে প্রায় পাঁচ লাখ বস্তু পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করছে। এর মধ্যে মাত্র ২ হাজার আছে স্যাটেলাইট কার্যক্রমে। যা দিয়ে যোগাযোগ, জিপিএস বা টেলিভিশন চালানো হয়। বাকি জিনিসগুলো রকেট নিক্ষেপণ এবং কক্ষপথে নানা সংঘর্ষের ফলে তৈরি হওয়া আবর্জনা।

কক্ষপথে থাকা এসব অপ্রয়োজনীয় এবং উচ্ছিষ্ট জিনিসপত্র পরিষ্কার করার প্রযুক্তি না থাকার ফলে পৃথিবীর চারদিকের কক্ষপথ ক্রমেই ভরে যাচ্ছে।

আবর্জনার সংখ্যা যত বাড়বে, কক্ষপথে ব্যস্ততা যত বেশি হবে, তখন এসব বস্তুর সঙ্গে আমাদের দরকারি উপগ্রহগুলো সংঘর্ষ হয়ে ক্ষতির ঝুঁকি বাড়বে।

 

২. বালি
পৃথিবী থেকে সবচেয়ে বেশি তুলে নেয়া কঠিন পদার্থ হলো বালি। যার সঙ্গে নুড়িও থাকে। জাতিসংঘ বলছে, প্রাকৃতিকভাবে যে হারে বালু তৈরি হয়, আমরা তার চেয়ে অনেক বেশি হারে এর ব্যবহার করছি। বিশাল বিশাল প্রাসাদ নির্মাণ, ভূমি পুনরুদ্ধার, পানি বিশুদ্ধকরণ, এমনকি কাঁচ ও মোবাইল ফোন তৈরিতে বালি ব্যবহার করা হচ্ছে।

বালি কমে গিয়ে ভঙ্গুর ইকো-সিস্টেমকে হুমকিতে ফেলছে। এ কারণে বিশ্বব্যাপী দাবি উঠেছে যে, বালির অত্যধিক ব্যবহারের ব্যাপারে নজরদারি ব্যবস্থা গড়ে তোলার।

 

৩. হিলিয়াম
হিলিয়াম গ্যাস সীমিত একটি সম্পদ। যা মাটির অনেক নীচ থেকে বের করে আনা হয়। কয়েক দশকের মধ্যে এই গ্যাসের মজুদ ফুরিয়ে যাওয়ার সম্ভবনা দেখা দিয়েছে। কোন কোন বিশেষজ্ঞ ধারণা, এই গ্যাসের আর মাত্র ৩০ থেকে ৫০ বছরের মজুদ রয়েছে। এই গ্যাসটি বেলুন ফুলাতেও ব্যবহার করা হয়।

কিন্তু হিলিয়াম গ্যাস চিকিৎসায় খুব জরুরি একটি অনুসঙ্গ। এমআরআই করতে ব্যবহৃত চুম্বককে এই গ্যাস ঠাণ্ডা রাখে। এমআরআই হচ্ছে এমন একটি যুগান্তকারী রোগ নির্ণয়কারী ব্যবস্থা, যা ক্যান্সার, মস্তিষ্ক এবং মেরুদণ্ডের আঘাত নির্ণয় করতে পারদর্শী।

 

৪. কলা
আমরা যে কলা খাই, তার বেশিরভাগ ক্যাভেন্ডিস জাতের। এই কলা ‘পানামা ডিজিজ’ নামের একটি ফাঙ্গাসে আক্রান্ত। কলা সরাসরি এসেছে একটি মাত্র গাছ থেকে, বাকিগুলো সব ক্লোন। ফলে কলা গাছের ভেতর পানামা রোগটি খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে।

১৯৫০ সালে ঠিক একই রকমের একটি রোগে বিশ্বের কলা চাষ বন্ধ হয়ে যায়। তখন চাষিরা গ্রস মাইকেল জাত থেকে সরে এসে ক্যাভেন্ডিস জাতের কলা চাষ করতে শুরু করেন। বিজ্ঞানীরা এখন কলার নতুন জাত উদ্ভাবনের চেষ্টা করছেন, যা এই ফাঙ্গাস প্রতিরোধ করতে পারবে, সেই সঙ্গে কলার স্বাদও বজায় থাকবে।

 

৫. মাটি
মাটির সবচেয়ে উপরের অংশ থেকে গাছপালা বা উদ্ভিদ তাদের প্রয়োজনীয় পুষ্টিগুণ সংগ্রহ করে। ডব্লিউডব্লিউএফ নামের একটি এনজিও বিশ্বের প্রকৃতি রক্ষায় কাজ করে। তারা ধারণা করছে যে, গত ১৫০ বছরে বিশ্বের মোট ভূমির অর্ধেকের উপরের অংশ হারিয়ে গেছে। কিন্তু এ রকম এক ইঞ্চি জমি প্রাকৃতিকভাবে তৈরি হতে পাঁচশ’ বছর লাগে।

নদী বা সাগরের ভাঙ্গন, ব্যাপক মাত্রায় কৃষিকাজ, বনভূমি উজাড় এবং বিশ্বের তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ার ফলে মাটির উপরের অংশ হারিয়ে গেছে। যার ওপর বিশ্বের খাদ্য উৎপাদন নির্ভর করে।

 

৬. ফসফরাস
মানব ডিএনএ গঠনের জন্য ফসফরাস শুধুমাত্র জীববিজ্ঞানের দৃষ্টিতেই যে গুরুত্বপূর্ণ তা নয়, বরং এটি কৃষিকাজের জন্য অত্যন্ত দরকারি। এটি সার তৈরিতে ব্যবহৃত হয়, যার কোন বিকল্প এখনও জানা নেই। যদিও এটি আমাদের সামনে আসে কাঠি দিয়ে আগুন জ্বালানোর কাজ দিয়ে।

মাটি থেকে এসে উদ্ভিদ এবং বর্জ্যের মাধ্যমে এটি আবার মাটিতে ফিরে যাওয়ার কথা। কিন্তু এখন ফসলের সঙ্গে সঙ্গে ফসফরাস শহর এলাকায় চলে আসছে এবং শেষ পর্যন্ত সেটি আমাদের পয়ঃনিষ্কাষণ ব্যবস্থার মাধ্যমে সাগরে গিয়ে মিশছে।

যেভাবে চলছে তা থেকে ধারণা করা হচ্ছে যে, ফসফরাসের খনিগুলো আর ৩৫ থেকে ৪০০ বছর পর্যন্ত যোগান দিতে পারবে। তারপরে হয়তো আমাদের বেশি ক্ষুধার্ত বোধ করতে হবে। সূত্র: বিবিসি।

Print Friendly, PDF & Email
মামুনুল হকের বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের মামলা
সোনারগাঁও থানার দুই পুলিশ পরিদর্শকের বদলি
সোনারগাঁয়ে মনোয়ারা চৌধুরী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ
কাউন্সিলর খোরশেদকে স্বামী দাবি করলেন সেই শিউলি
সোনারগাঁয়ে চোরাই গজারি কাঠ জব্দ
আরমানিটোলায় বহুতল ভবনে আগুন, নিহত বেড়ে ৪
যাত্রাবাড়ীতে মাদ্রাসার আগুন নিয়ন্ত্রণে
সোনারগাঁয়ে জাতীয় পাটির নেতাকর্মীদের হয়রানি বন্ধে জিএম কাদেরের বিবৃতি
মক্কার গ্র্যান্ড মসজিদে প্রথমবারের মতো নারী গার্ড
মামুনুলের রিসোর্টকাণ্ড: ওসি রফিকুল চাকরিই হারালেন
চব্বিশ ঘণ্টায় করোনায় ১১২ জনের মৃত্যু
হেফাজতের ২৩ মামলা তদন্তের দায়িত্ব পেলো সিআইডি
প্রয়োজনে ঈদের আগে লকডাউন শিথিল: কাদের
সোনারগাঁয়ে হেফাজতের ভাঙচুর মামলায় জাপা নেতা আব্দুর রউফ গ্রেফতার
খেজুরের যত গুণ
২২ এপ্রিল থেকে মার্কেট খুলে দেওয়ার দাবি
মামুনুল হক ঘটনায় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফারুক আহমেদ গ্রেফতার
হেফাজত নেতা মামুনুল গ্রেফতার
জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে জটিল পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হচ্ছে
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ১০০ ছাড়াল
কোথায় ফোন দিয়ে কোন সেবা পাবেন?
হঠ্যাৎ অস্বাভাবিক হারে বাড়ছে সিমেন্টের দাম
রিজিকের মালিক শুধুই আল্লাহ
মদনপুর থেকে আড়াইহাজার সড়কের নাম মাজাভাঙ্গা!
দুর্ঘটনায় নিহতরা শহীদ
খালেদা জিয়াকে দেখতে কারাগারে গেলেন ডা.বিরু
সোনারগাঁয়ে টেনশনে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা
সোনারগাঁয়ে পুলিশের উপর হামলা, এসআইসহ ৩ পুলিশ আহত, গ্রেফতার ৩
সরকারি স্কেলে বেতন-ভাতা পাবেন ইমাম-মুয়াজ্জিনরা
সারা দেশে নির্মাণ হচ্ছে ৫৬০টি মডেল মসজিদ , নারায়ণগঞ্জে ৫টি উপজেলায় জয়গা পরির্দশন
হুমকির মুখে বুড়িগঙ্গা নদীর অস্তিত্ব
জেনে নিন সেহরি ও ইফতারের সময়
ধনীর সম্পদে গরিবের হক
কবর নিরাপত্তার নামে চাঁদাবাজি
বিদায় ২০১৭, স্বাগত ২০১৮
সোনারগাঁয়ে হেভিওয়েট ৭ মনোনয়ন প্রত্যাশীর হাড্ডাহাড্ডি লড়াই
সোনারগাঁয়ে ইউপির সচিব মহিউদ্দিনের দুর্নীতি ও অনিয়ম থামাবে কে?
কে হচ্ছেন সোনারগাঁও উপজেলার আওয়ামী লীগের সভাপতি
আল্লাহর পথে দানের বিনিময়
দান ব্যবসার মূলধন বাড়ায়

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  
প্রয়োজনীয় নাম্বার